শারীরিক স্পর্শ বা আলিঙ্গন কেন এতো গুরুত্বপূর্ণ

প্রকাশিতঃ ১৪ মে, ২০১৯ আপডেটঃ ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ

শিশুকে স্পর্শ বা আদর করার মধ্য দিয়ে যেমন বিশ্বাস আর আস্থা অর্জন করা যায়, তেমনি প্রিয়জনদের স্পর্শে বড়রাও পায় মানসিক সুখ আর শান্তি৷ বিষয়টি এক সমীক্ষায় আরো স্পষ্ট হয়েছে৷

শুরু হয় মাতৃগর্ভেই

শারীরিক স্পর্শে সাড়া দেয়া শুরু হয় মাতৃগর্ভেই৷ প্রতিটি মা-ই তা জানেন৷ গর্ভের ভ্রূণের বয়স যখন দু’মাস আর মাত্র দুই সেন্টিমিটার লম্বা তখন গর্ভবতী কোনো কারণে আনন্দিত হয়ে তার পেটে হাত বুলালেই তা টের পান৷ সেটাই হচ্ছে স্পর্শ বোঝার প্রথম প্রকাশ, জানান টাচ বা স্পর্শ বিষয়ক জার্মান গবেষক ড. মার্টিন গ্রুনভাল্ড৷

অত্যন্ত জরুরি

শিশুকে যত বেশি স্পর্শ বা আদর করা যায়, শিশুর জন্য ততটাই মঙ্গল৷ বিশেষ করে প্রি-ম্যাচিউর বেবির জন্য স্পর্শ বা আলিঙ্গন অত্যন্ত জরুরি৷ ইনকিউবেটরে থাকা শিশুকে প্রতিদিন কিছুক্ষণের জন্য কোলে নেওয়া উচিত৷ এতে মায়ের শরীরের উষ্ণতা শিশুকে শারীরিক ও মানসিকভাবে স্বাভাবিক হতে সাহায্য করে৷পরবর্তী জীবনের জন্য তা খুব গুরুত্বপূর্ণ৷

জার্মানদের স্পর্শ-সংস্কৃতি

রাতে ঘুমোতে যাবার আগে সন্তানকে ‘গুটেনাখ্ট’ বা শুভরাত্রি বলে চুমু দেয়া বা ছুটির দিন সকালে কিছুক্ষণের জন্য মা-বাবার বিছানায় তাদের সাথে খুনসুটি করা জার্মান সংস্কৃতির একটি অঙ্গ৷ বলা বাহুল্য, এদেশে জন্মের পর থেকেই শিশুরা আলাদা ঘরে ঘুমায়৷

স্পর্শ চাই বড়দেরও

ঘাড়ে একটু হাত বুলিয়ে দেওয়া কিংবা চিবুকে একটু আদরের স্পর্শ বা পাশাপাশি বসে টিভি দেখা– জীবনসঙ্গীর জন্য প্রতিদিনের ভালোবাসায় একটু মধু ঢালার মতো৷ জানান সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর মাটিয়াস রিডেল৷

আলিঙ্গন কষ্ট ভোলাতে সহায়তা করে

দুঃসংবাদ বা শোক সংবাদে প্রিয়জনদের আন্তরিক আলিঙ্গন সাময়িকভাবে হলেও কষ্ট কমায়৷

সমীক্ষার ফলাফল

জীবনসঙ্গীদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্কের ভূমিকা নিয়ে করা এক সমীক্ষার ফলাফল থেকে জানা গেছে, স্বামী-স্ত্রী বা পার্টনারের মধ্যে যত বেশি শারীরিক যোগাযোগ বা আলিঙ্গন, অপরের প্রতি তারা তত বেশি সন্তুষ্ট৷

প্রথম রাত

সমীক্ষাটির ফলাফল জানাতে গিয়ে ডা. রিডেল বলেন, প্রথম রাতের শারীরিক ভালোবাসার কথা শতকরা ৯৩ জনের মনেই নাকি খুব ভালোভাবে গেঁথে আছে৷

আলিঙ্গনে আনন্দ ভাগাভাগি

আলিঙ্গনে শোকের কষ্ট কমে, কিন্তু আনন্দের আলিঙ্গনে তা আরো বেড়ে যায়৷ তাছাড়া স্পর্শ বা আলিঙ্গন করে শুভেচ্ছা জানানোর রেওয়াজ বহু দেশেই রয়েছে৷

অপরিচিত স্পর্শ

পরিচিত বা আপনজনদের আলিঙ্গন বা শুধুমাত্র একটুখানি স্পর্শ যেমন ভালো লাগা তৈরি হয়, ঠিক তেমনি অপরিচিত কারো স্পর্শ ভয় আর আতঙ্ক সৃষ্টি করে৷

পরিচিত স্পর্শ

স্পর্শ বিশ্বাসকে করে শক্তিশালী৷ স্পর্শকে উপভোগ করার জন্য প্রয়োজন বিশ্বাস, আস্থা৷ তাই তো কাছের বা পরিচিতদের স্পর্শে আনন্দময় হয়ে ওঠে মন, দোলা দেয় শরীরে সুখ-হরমোন৷ সামান্য স্পর্শই অসুস্থ আপনজনকে সুস্থ হওয়ার পথে এগিয়ে দেয়৷

বাঁচার জন্য প্রয়োজন আন্তরিক স্পর্শ

লাইপজিগ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. মার্টিন গ্রুনভাল্ডের ভাষায়, ‘‘স্পর্শ ও আদর ছাড়া কোনো স্তন্যপায়ী প্রাণীই বাঁচতে পারেনা, মানুষ তো নয়ই…৷