ধূমপানে কতটা আসক্ত আপনি? জেনে নিন! (ফটো অ্যালবাম)

    প্রকাশিতঃ ৯ আগস্ট, ২০১৬ আপডেটঃ ৫:২৪ অপরাহ্ণ

    পয়েন্ট যত কম তত ভালো

    একজন ধূমপায়ী ধূমপানে কতটা আসক্ত তা ঠিকমতো খুঁজে বের করতে এই পরীক্ষাটি তৈরি করেছেন সুইডিশ ডাক্তার কার্ল ওলাফ ফাগেরস্ট্র্যোম৷ প্রথম প্রশ্ন, সকালে ঘুম থেকে ওঠার কতক্ষণ পর প্রথম সিগারেটটি ধরান? পাঁচ মিনিটের মধ্যে হলে আপনার জন্য ৩ পয়েন্ট, ৬ থেকে ৩০ মিনিটের মধ্যে হলে ২ পয়েন্ট৷ আর এক ঘণ্টার ভেতর হলে ১ পয়েন্ট৷ যে এক ঘণ্টার পর প্রথম সিগারেট ধরাবেন, তার জন্য ০ পয়েন্ট৷ পয়েন্ট যত কম স্বাস্হ্যের জন্য তত ভালো৷

    ধূমপান নিষেধ

    যেসব জায়গায় ধূমপান নিষিদ্ধ, অর্থাৎ সিনেমা হল, রেস্তোরাঁ, প্লেন, ট্রেন – এ সব জায়গায় ধূমপান না করতে পেরে কি আপনি অসুবিধা বোধ করেন?

    পছন্দের সময়

    ঠিক কোন সময়ের সিগারেটটি আপনি কিছুতেই বাদ দিতে চান না বা না খেয়ে থাকতে পারবেন না? সকালে ঘুম থেকে উঠে না খেয়ে না থাকতে পারলে ১ পয়েন্ট, আর অন্য সময়ের জন্য ০ পয়েন্ট৷

    মোট সিগারেটের সংখ্যা

    আপনি দিনে মোট কতবার ধূমপান করেন? ৩০টির বেশি সিগারেট হলে পয়েন্ট পাবেন ৩ আর ২১ থেকে ৩০-এর মধ্যে হলে পয়েন্ট ২৷ ১১ থেকে ২০ বার ধূমপান করলে পয়েন্ট ১ আর ১০টি সিগারেটের কম হলে পয়েন্ট ০৷

    কখন বেশি খান?

    সকালের দিকে বেশি সিগারেট খান? উত্তর ‘হ্যাঁ’ হলে পয়েন্ট ১ আর ‘না’ হলে পাবেন পয়েন্ট ০৷ আপনি যখন অসুস্থ অথবা অন্য কোনো কারণে যখন আপনাকে বিছানায় শুয়ে থাকতে হয়, তখনও কি ধূমপান করেন?

    যোগফল কত?

    এবার পয়েন্টগুলো যোগ করে ফেলুন৷ উত্তর যদি ২ পর্যন্ত হয়, তাহলে আপনি ধূমপানে আসক্ত নন৷ আর ৩ থেকে ৪ হলে কিছুটা আসক্ত৷ পয়েন্টের সংখ্যা ৫ হলে মাঝামাঝি৷ ৬ থেকে ৭ হলে বেশ আসক্ত৷ আর উত্তর বা পয়েন্ট যদি হয় ৮ থেকে ১০, তাহলে আপনি ধূমপানে খুবই আসক্ত৷ যাই হোক না কেন, আপনি সাবধান বা সচেতন না হলে কিন্তু ধূমপানের মাত্রা বেড়ে যাবে, যার ফল হতে পারে ভয়ংকর৷

    ক্যানসারের ঝুঁকি

    আপনার পয়েন্ট যখন ৬ থেকে ১০, তখন এর অর্থ হলো নিজের ওপর আর আপনার নিয়ন্ত্রণ নেই৷ তাই ডাক্তারের পরামর্শ নিন৷ তা না হলে ধূমপান থেকে বিরত হওয়া হয়ত সম্ভব নয়৷ কারণ ক্যানসার রোগীদের প্রতি পাঁচজনের একজনই ধূমপায়ী৷ তামাকের বিষাক্ত ধোঁয়া ফুসফুসের ক্যানসার ছাড়াও অন্যান্য ক্যানসারও ছড়ায়৷

    বাবা হতে চান?

    ধূমপান শুধু ক্যানসার বা হৃদরোগের ঝুঁকি নয়, জার্মানির সারলান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা প্রমাণ করেছেন, তামাকের ধোঁয়া পুরুষের প্রজনন ক্ষমতার উপরও প্রভাব ফেলতে পারে৷ অর্থাৎ যে পুরুষ সন্তানের বাবা হতে চান, তাঁর ধূমপান করা একেবারেই উচিত নয়৷